হাউস অব লর্ডসে ‘বাংলাদেশে গণতন্ত্র ও মানবাধিকার’

:: আনসার আহমেদ উল্লাহ, লন্ডন ::
প্রকাশ: ৯ মাস আগে

স্টাডি সার্কেল লন্ডন, সৈয়দ মোজাম্মেল আলীর সঞ্চালনায় , গত ১৮ সেপ্টেম্বর, হাউস অফ লর্ডস অ্যাটলি এবং রিড রুমে ‘বাংলাদেশে গণতন্ত্র ও মানবাধিকার’ শীর্ষক একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কিংসক্লেরের লর্ড ড্যানিয়েল হান্নান। তিনি যুক্তরাজ্য ও বাংলাদেশের মধ্যে বাণিজ্য সুযোগের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন।

বক্তাদের মধ্যে ছিলেন বাংলাদেশের মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ডা. মিজানুর রহমান, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ডাঃ গওহর রিজভী ও মার্টিন ডে এমপি। প্রধান বক্তা ডক্টর মিজানুর রহমান, বাংলাদেশের মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান, বলেন, “যখন সুবিধাবাদী বিদেশী শক্তি চরমপন্থাকে মূলধারায় নিয়ে আসে, তখন তা আমাদের গণতন্ত্রকে হুমকির মুখে ফেলে। আসুন গণতন্ত্রের মৃত্যু ঠেকাতে হাত মেলাই। আমি দেশে ফিরে বলব যে যুক্তরাজ্য আমাদের সাথে আছে এবং আমাদের পাশে আছে।”

বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ডক্টর গওহর রিজভী বলেছেন, “আমি একটি অনুস্মারক দিতে চাই যে এখনও অনেক কিছু করার আছে, কিন্তু আমরা গণতন্ত্র ও উন্নয়ন অর্জনের চেষ্টা করছি। ” যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের হাইকমিশনার, সাইদা মুনা তাসনীম, যুক্তরাজ্য এবং বাংলাদেশের মধ্যে শক্তিশালী বাণিজ্য সম্পর্কের উপর জোর দিয়ে বলেন, “আমরা একই মূল্যবোধ অনুসরণ করছি, ধর্মনিরপেক্ষ এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক সমাজকে লালন করছি। এই লড়াই ধর্মনিরপেক্ষ ও অসাম্প্রদায়িক শক্তির মধ্যে।”

আলোচনা পর্বে অংশগ্রহণ করেন নিরাপত্তা এনালিস্ট ক্রিস ব্লাকবার্ন, কমিউনিটি নেতা সুলতান শরীফ, রাজনৈতিক বিশ্লেষক সৈয়দ বদরুল আহসান, ড রায়হান রশিদ, শিক্ষার্থী অর্পিতা, টনি ব্লেয়ার ইনস্টিটিউটের উসামা হাসান সহ আরোও অনেকে। বক্তারা বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ধর্মনিরপেক্ষ আকাঙ্ক্ষা এবং সংখ্যালঘুদের সুরক্ষার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গৃহীত প্রচেষ্টার উপর আলোকপাত করলেও, তারা স্বীকার করেছেন যে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা ছড়ানোর জন্য দেশে কিছু মৌলবাদী গোষ্ঠীর কর্মকাণ্ডের কারণে এই সম্প্রীতি হুমকির মুখে পড়েছে। নেতৃস্থানীয় রাজনীতিবিদদের একটি ক্রস-পার্টি গ্রুপ, সেইসাথে কূটনীতিক এবং কমিউনিটি নেতারা আলোচনায় অংশ নেন।

অনুষ্ঠানে টিমোথি লাউটন এমপি, ফরেন কমনওয়েলথ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অফিস (এফসিডিও) এবং স্টাডি সার্কলের সমন্বয়ক জামাল আহমেদ খান সহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।

 

লন্ডন/ আনসার আহমেদ উল্লাহ/ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ইং।