রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র: টেকসই জ্বালানির পথে বাংলাদেশ

:: মেহজাবিন বানু ::
প্রকাশ: ৮ মাস আগে
রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র। ছবি: সংগৃহীত

রাশিয়ার জাতীয় পারমাণবিক সংস্থা রোসাটমের মহাপরিচালক আনুষ্ঠানিকভাবে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জ্বালানি হিসেবে ব্যবহৃত ইউরেনিয়ামের প্রথম কার্গো বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তর করেছেন। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার ভার্চুয়ালি গ্র্যাজুয়েশন অনুষ্ঠানে যোগ দেন। এই প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণের যুগে প্রবেশ করে। পরমাণু শক্তি ব্যবহারকারী দেশগুলোর তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান ৩৩তম। এটি দেশের বিদ্যুৎ উৎপাদন শিল্পে একটি নতুন অধ্যায়ের সূচনা করেছে। এছাড়া রাশিয়া সবসময় বাংলাদেশকে সমর্থন করবে বলে আশা করা হচ্ছে।

উন্নয়নের ফলস্বরূপ একটি জনপদ উল্লেখযোগ্য পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যায়। বৃহত্তর অর্থে, জাতি পরিবর্তিত হয়। রূপপুর একটি ভালো উদাহরণ। এটি পাবনার ইশরাদীর একটি বসতি। সেখানে রাশিয়ার বিজ্ঞানী ও শ্রমিকরা দেশের প্রথম পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে সরাসরি সহায়তা করেন। গত বছরের অক্টোবরে দ্বিতীয় পারমাণবিক চুল্লির স্থাপনা আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধনী ভাষণ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২০২১ সালের অক্টোবরে তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে বিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রাথমিক রিয়্যাক্টর প্রেসার ভেসেল স্থাপনের উদ্বোধন করেন। বৃহস্পতিবার রূপপুর পারমাণবিক প্রকল্প অনুমোদন পেয়ে স্মার্ট বাংলাদেশ উদ্যোগের একটি মাইলফলক পূর্ণ করেছে।

পারমাণবিক বোমা একটি বাস্তবতা। পারমাণবিক শক্তি তাত্ক্ষণিকভাবে লক্ষ লক্ষ মানুষের জীবনের প্রদীপ জ্বালানো সম্ভব করে তোলে। আবার সেই পারমাণবিক শক্তি ব্যবহার করে কোটি কোটি মানুষের অন্ধকার ঘরবাড়ি আলোকিত করাও কঠিন কিছু নয়। শেখ হাসিনা দেশের নাগরিকদের কল্যাণ ও প্রবৃদ্ধির জন্য তাঁর জীবন উৎসর্গ করেছেন। বাংলাদেশের পারমাণবিক শক্তির শান্তিপূর্ণ ব্যবহার উল্লেখযোগ্য।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র জাতির জন্য শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ প্রকল্প ছিল। ছয় দশক আগে পাকিস্তানের পূর্ব ও পশ্চিমাঞ্চলে দুটি পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করা হলেও দুটিই পশ্চিম পাকিস্তানে অবস্থিত। ফলস্বরূপ বঙ্গবন্ধু পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের নকশা নিয়ে এগিয়ে যান এবং  ১৯৭১ সালে একটি সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে জাতি স্বাধীনতা অর্জনের বছরে নকশা পরিকল্পনা সম্পন্ন হয়।  উন্নয়নবিরোধীরা তার ইচ্ছা প্রত্যাখ্যান করে। পরে, তার কন্যা তার বাবার উচ্চাকাঙ্ক্ষা পূরণে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি অর্জন করে।

যদিও নিম্নোক্ত প্রশাসন দেশের চলমান উন্নয়নের উপর এই কাজটিকে স্টোরেজে রেখেছিল। পরে শেখ হাসিনা নবগঠিত সরকারের নেতৃত্ব গ্রহণের পর বিদ্যুৎকেন্দ্রের নির্মাণ কাজ গতি পায়। আগামী বছরের শেষ নাগাদ বিদ্যুৎকেন্দ্রটি মোট ২ হাজার ৪০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের পরিকল্পনা রয়েছে। পরিবেশবান্ধব রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের নিরাপত্তা সরকারের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এখানে, নিরাপত্তা ব্যবস্থা গুলি স্তর ৩ থেকে স্তর ৪ পর্যন্ত বিস্তৃত। দেশের ক্রমবর্ধমান বিদ্যুতের চাহিদা পূরণে রূপপুর বিদ্যুৎকেন্দ্র গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আশা করা হচ্ছে।

টেকসই ভবিষ্যতের জন্য বাংলাদেশের পারমাণবিক শক্তি ব্যবহারের আকাঙ্ক্ষা রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মাধ্যমে প্রমাণিত হয়। পাবনা জেলায় অবস্থিত এই বৃহৎ প্রকল্পটি দেশের নিরাপদ ও নির্ভরযোগ্য জ্বালানি উৎসের উন্নয়নে একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ।

বাংলাদেশের একটি বিশাল জনসংখ্যা এবং একটি দ্রুত বর্ধনশীল অর্থনীতি রয়েছে। দেশে জ্বালানি উৎপাদন অবশ্যই টেকসই এবং পর্যাপ্ত হতে হবে। জনসংখ্যার চাহিদা মেটাতে, বিদ্যুতের প্রয়োজনীয়তা ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। শিল্প ও বাণিজ্যিক খাত যেমন বাড়ছে, ঠিক তেমনি বাড়ছে বিদ্যুতের চাহিদাও। জীবাশ্ম সম্পদের সীমাবদ্ধতা এবং গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমন হ্রাস করার প্রয়োজনীয়তা স্বীকার করার কারণে বাংলাদেশ পারমাণবিক শক্তিকে একটি নির্ভরযোগ্য এবং পরিষ্কার বিকল্প হিসাবে দেখেছে।

দেশের বিদ্যুৎ সমস্যা সমাধান এবং জীবাশ্ম জ্বালানির উপর নির্ভরতা হ্রাস করার লক্ষ্যে এই ধারণাটি রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের নেতৃত্বে রয়েছে। প্রকল্পটি তৈরি কারী দুটি ভিভিইআর-১২০০ রিয়্যাক্টরের সম্মিলিত ক্ষমতা ২,৪০০ মেগাওয়াট হবে বলে আশা করা হচ্ছে। এটি চালু হলে টেকসই জ্বালানি উন্নয়ন এবং বাংলাদেশের জ্বালানি মিশ্রণে বৈচিত্র্য আনতে এটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনে বাংলাদেশের অঙ্গীকারের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ। কারণ এটি জাতীয় গ্রিডে পরিচ্ছন্ন শক্তির অনুপাত বাড়াবে, এটি সরাসরি এসডিজি ৭ (সস্তা ও পরিচ্ছন্ন শক্তি) সমর্থন করবে। অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, দারিদ্র্য বিমোচন এবং কার্বন নিঃসরণ হ্রাসের মাধ্যমে জলবায়ু পরিবর্তনমোকাবেলার মাধ্যমে এটি পরোক্ষভাবে অন্যান্য বেশ কয়েকটি এসডিজিকেও সহায়তা করে।

প্রকল্পটি আরও দায়িত্বশীল এবং টেকসই জ্বালানি ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে যাওয়ার জন্য বাংলাদেশের সংকল্পকেও দেখায়। দেশটি তার কার্বন নিঃসরণ হ্রাস এবং পারমাণবিক শক্তিতে বিনিয়োগের মাধ্যমে তার জনগণের জন্য বিদ্যুতের অবিচ্ছিন্ন সরবরাহ নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি করার অঙ্গীকার করেছে।

নির্ভরযোগ্য ও টেকসই জ্বালানি উৎস অনুসন্ধানে বাংলাদেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ হলো রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে অসুবিধা এবং বিলম্ব সত্ত্বেও তার সম্প্রসারিত জ্বালানি চাহিদার একটি পরিষ্কার এবং কার্যকর সমাধান হিসাবে পারমাণবিক শক্তিকে গ্রহণ করার দেশের আগ্রহ দেখায়।

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র বাংলাদেশের জ্বালানি উৎসে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনতে পারে, জীবাশ্ম জ্বালানির ওপর নির্ভরতা হ্রাস করতে পারে এবং কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা, আন্তর্জাতিক সহযোগিতা ও জনসম্পৃক্ততার মাধ্যমে একটি সবুজ ও সমৃদ্ধ ভবিষ্যতে অবদান রাখতে পারে। দেশের জ্বালানি নিরাপত্তা এবং স্থায়িত্বের উপর প্রকল্পটির প্রকৃত প্রভাব আরও স্পষ্ট হয়ে উঠবে যখন এটি সম্পন্ন হবে এবং পরিষেবাতে চলে যাবে।

যে কোনো জাতির আর্থ-সামাজিক অগ্রগতি নির্ভর করে বিদ্যুতের ব্যবহারের ওপর। উন্নয়নকে সমর্থন করার জন্য, পর্যাপ্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ থাকতে হবে। চলমান উন্নয়ন, শিল্পায়ন এবং ভবিষ্যত প্রজন্মকে সহায়তা করার জন্য আরও বিদ্যুৎ উত্পাদন করা দরকার। পারমাণবিক শক্তি ব্যবহার করা ছাড়া তার আর কোনো উপায় থাকবে না। জলবায়ু পরিবর্তন বিবেচনায় নিয়ে বিশ্বে টেকসই জ্বালানি উৎপাদনের জন্য এখন যে সব উৎসের ওপর জোর দেওয়া হচ্ছে তার মধ্যে পারমাণবিক শক্তি অন্যতম।

বিশেষজ্ঞদের মতে, এই পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র আর্থ-সামাজিক খাতকে উল্লেখযোগ্যভাবে উপকৃত করবে। এটি আরও নতুন কাজের সুযোগ প্রদান করবে। জিডিপিতে ২ শতাংশ যোগ করার পাশাপাশি পুরো উত্তরাঞ্চলের বিদ্যুৎ সংকট সমাধানে এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হবে।

 

লেখিকা: মেহজাবিন বানু, লেখিকা ও কলামিস্ট।