যুক্তরাজ্য-বাংলাদেশের ক্রমবর্ধমান বাণিজ্য সম্পর্কের সম্ভাবনা

:: ইরিনা হক ::
প্রকাশ: ১২ মাস আগে

কোভিড-১৯ পরবর্তী রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে সৃষ্ট বৈশ্বিক অর্থনৈতিক মন্দার প্রেক্ষাপটে যুক্তরাজ্যের আন্তর্জাতিক বাণিজ্য বিষয়ক মন্ত্রী নাইজেল হাডলস্টনের সাম্প্রতিক ঢাকা সফর বিভিন্ন কারণে গুরুত্বপূর্ণ। এ সময় তিনি বাণিজ্যমন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা এবং বেশ কয়েকজন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তার সঙ্গে বৈঠক করেন। সেসব আলোচনায় রোহিঙ্গা শরণার্থী সমস্যা, রাজনীতি ও নিরপেক্ষ নির্বাচন প্রভৃতি বিষয় উঠে আসে। উঠে এলেও দুই দেশের মধ্যে পারস্পরিক ব্যবসা-বাণিজ্য-বিনিয়োগ ছিল সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য পায়।
বাণিজ্যের পাশাপাশি শিক্ষা, প্রতিরক্ষা, বিমান চলাচল ইত্যাদি ক্ষেত্রে সহযোগিতা। গুরুত্ব পেয়েছে।
উল্লেখ্য, যুক্তরাজ্য ও বাংলাদেশের মধ্যে গভীর রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক রয়েছে এবং গত দুই দশকে বাণিজ্য উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। যুক্তরাজ্যসহ রফতানির মাধ্যমে বাংলাদেশের অর্থনীতি বড় ধরনের কাঠামোগত পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে গেছে, যা উৎপাদন ভিত্তি উন্নয়নে অনুঘটক ভূমিকা পালন করছে। দেশটি বাংলাদেশের জন্য একটি অন্তহীন রফতানি বাজারও বটে।
২০২২-২৩ অর্থবছরে বাংলাদেশ যুক্তরাজ্যে ৫.৩১ বিলিয়ন ডলারের পণ্য রফতানি করেছে। তবে এটি আরও বাড়ানোর বিশাল সম্ভাবনা রয়েছে। অন্যদিকে বাংলাদেশ যুক্তরাজ্য থেকে ৪৫০ মিলিয়ন ডলারের পণ্য আমদানি করেছে। বাণিজ্যমন্ত্রী বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অঞ্চলে আরও বিনিয়োগের জন্য বাংলাদেশের বাণিজ্যমন্ত্রীকে অনুরোধ করেন। জবাবে যুক্তরাজ্যের বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, সে দেশের ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন সমস্যা ও চ্যালেঞ্জমোকাবেলা করতে হয়। বিদ্যমান সমস্যার দ্রুত সমাধানের আশ্বাস দিয়েছে বাংলাদেশ। দু’দেশের মধ্যে অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ক সম্প্রসারণে যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপের বৈঠকেও আলোচনা হয়। যাতে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য, অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও বিনিয়োগ ভবিষ্যতে আরও জোরদার ও জোরদার করা যায়।
সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুক্তরাজ্যের নতুন রাজা তৃতীয় চার্লসের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দিতে যান। এ ছাড়া যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাকের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বৈঠক এক কথায় উষ্ণ, আন্তরিক, আন্তরিক এবং সর্বোপরি ফলপ্রসূ ছিল। এক পর্যায়ে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আপনারা আমাদের পরিবারের অনুপ্রেরণা। আমি তোমাকে অনেক বছর ধরে অনুসরণ করছি। আপনি একজন সফল অর্থনৈতিক নেতা। বাংলাদেশের ব্যাপক অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির প্রশংসা করে তিনি বলেন, ‘আপনারা উন্নয়নের রোল মডেল। এ প্রসঙ্গে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গাদের আশ্রয়, জলবায়ু পরিবর্তনসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ফোরামে বাংলাদেশের গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকার প্রশংসা করেন।
বাণিজ্য ভারসাম্য ব্যাপকভাবে বাংলাদেশের পক্ষে ছিল, মূলত এর সমৃদ্ধ তৈরি পোশাক (আরএমজি) খাতকে দায়ী করা হয়েছিল, যা বাণিজ্যের সিংহভাগের জন্য দায়ী। ২০২২ সালে বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাজ্যের মোট আমদানি ৫৪.০ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩.৮ বিলিয়ন পাউন্ডে। একই সময়ে বাংলাদেশে যুক্তরাজ্যের রফতানি ৩৬ দশমিক ৭ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে ৮৯ কোটি ৭০ লাখ পাউন্ডে উন্নীত হয়েছে।
যুক্তরাজ্য বাংলাদেশে দ্বিতীয় বৃহত্তম বিদেশি বিনিয়োগকারী দেশ। ২০২০ সালের মার্চ পর্যন্ত যুক্তরাজ্যভিত্তিক কোম্পানিগুলো প্রায় ২.৪৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগ করেছে এবং বাংলাদেশে ২০০টিরও বেশি ব্রিটিশ কোম্পানি রয়েছে। এছাড়া যুক্তরাষ্ট্র ও জার্মানির পর যুক্তরাজ্য বাংলাদেশের তৃতীয় বৃহত্তম বাজার গন্তব্য। ২০২১ সালে বাংলাদেশ দেশে ২.৪ বিলিয়ন পাউন্ডমূল্যের পণ্য রফতানি করেছে এবং একই সময়ে ৫৮৫ মিলিয়ন পাউন্ডমূল্যের পণ্য আমদানি করেছে।
যুক্তরাজ্যের উন্নয়ন সহায়তায় ভারতের পর বাংলাদেশ দ্বিতীয় বৃহত্তম দেশ। স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশকে যুক্তরাজ্যের মোট সহায়তা ৩ বিলিয়ন পাউন্ড অতিক্রম করেছে। যুক্তরাজ্য জাতিসংঘের স্বল্পোন্নত দেশ (এলডিসি) হওয়ায় দেশটিকে শুল্কমুক্ত রফতানি সুবিধা দিয়ে আসছে। তবে ২০২৬ সালের মধ্যে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে বাংলাদেশের উত্তরণ ক্রমবর্ধমান অর্থনীতির জন্য বেশ কিছু চ্যালেঞ্জ সৃষ্টি করেছে। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, যুক্তরাজ্যসহ উন্নত দেশগুলো থেকে বাংলাদেশ আর অফিসিয়াল ডেভেলপমেন্ট অ্যাসিসট্যান্স (ওডিএ) পাওয়ার যোগ্য হবে না। সুতরাং, তাদের ভবিষ্যত অর্থনৈতিক অংশীদারিত্ব পুনর্বিবেচনা করার সময় এসেছে।
প্রাক্তন ঔপনিবেশিক সম্পর্ক এবং সস্তা বিদেশী শ্রমের উৎসের কারণে, যুক্তরাজ্য পশ্চিমা বিশ্বের বৃহত্তম বাংলাদেশী জনসংখ্যার কেন্দ্র। প্রবাসী, যা এখন প্রায় ০.৬ মিলিয়ন, ক্রমবর্ধমান রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক এবং সাংস্কৃতিক সম্পর্কের একটি মূল লিঙ্ক হিসাবে রয়ে গেছে। বর্তমানে যুক্তরাজ্যে প্রায় ১০০ জন ব্রিটিশ-বাংলাদেশি কাউন্সিলর এবং ৪ জন সংসদ সদস্য (এমপি) রয়েছেন। কমিউনিটিটি ১০,০০০ এরও বেশি বাংলাদেশী রেস্তোঁরা পরিচালনা করে, যার বার্ষিক টার্নওভার ৪.৫ বিলিয়ন পাউন্ড।
বাংলাদেশের জন্য রেমিট্যান্সের অন্যতম প্রধান উৎস যুক্তরাজ্য। গত ২০২০-২১ অর্থবছরে ২০২৩.৬২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার রেমিট্যান্সের চতুর্থ বৃহত্তম উৎস ছিল যুক্তরাজ্য।
পোশাক এই প্রবৃদ্ধির পিছনে চালিকা শক্তি হিসাবে আবির্ভূত হয়েছিল, যা বাংলাদেশ থেকে আমদানি করা যুক্তরাজ্যের সমস্ত পণ্যের ৩.৩ বিলিয়ন পাউন্ড বা ৯১.৯% প্রতিনিধিত্ব করে। বাংলাদেশ থেকে আমদানি করা অন্যান্য শীর্ষ পণ্যগুলির মধ্যে রয়েছে টেক্সটাইল ফ্যাব্রিকস (৭৪.৭ মিলিয়ন পাউন্ড বা ২.১%), ফিশ অ্যান্ড শেলফিশ (৪৫.৭ মিলিয়ন পাউন্ড বা ১.৩%), মেকানিক্যাল পাওয়ার জেনারেটর (৩৮.৭ মিলিয়ন পাউন্ড বা ১.১%), এবং গাড়ি ব্যতীত অন্যান্য সড়ক যানবাহন (৩৩.৯ মিলিয়ন পাউন্ড বা ১.০%)।
অন্যদিকে, বাংলাদেশে যুক্তরাজ্যের শীর্ষ রফতানিতে ধাতব আকরিক এবং স্ক্র্যাপ রয়েছে, যার পরিমাণ ৩১৭.২ মিলিয়ন পাউন্ড বা বাংলাদেশ আমদানি করা যুক্তরাজ্যের মোট পণ্যের ৫৭.০%। যান্ত্রিক শক্তি জেনারেটর (মধ্যবর্তী) ঘনিষ্ঠভাবে পিছনে ছিল, রফতানি মূল্য £ ৩২.৫ মিলিয়ন বা ৫.৮%। বিমান (£ ২৯.১ মিলিয়ন বা ৫.২%), সাধারণ শিল্প যন্ত্রপাতি (মূলধন) (£ ২৩.৩ মিলিয়ন বা ৪.২%), এবং বৈদ্যুতিক মোটরস (মূলধন) (£ ২২.৪ মিলিয়ন বা ৪.০%) শীর্ষ রফতানি পণ্যের তালিকা সম্পন্ন করেছে।
২০২২ সালে যুক্তরাজ্যের ৫০তম বৃহত্তম বাণিজ্যিক অংশীদার হওয়ার মধ্য দিয়ে যুক্তরাজ্যের বাণিজ্যিক অঙ্গনে বাংলাদেশের ক্রমবর্ধমান প্রাধান্য স্পষ্ট। যুক্তরাজ্যের মোট বাণিজ্যের ০.৩% এর জন্য দায়ী, যা তাদের শক্তিশালী অর্থনৈতিক সম্পর্ক থেকে প্রাপ্ত পারস্পরিক সুবিধাগুলিকে নির্দেশ করে।
বাণিজ্যের পাশাপাশি দুই দেশের মধ্যে প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগ (এফডিআই) উল্লেখযোগ্য। ২০২১ সালে বাংলাদেশে যুক্তরাজ্যের প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগের পরিমাণ ৮১৬ মিলিয়ন পাউন্ডে পৌঁছেছে, যা দেশের সম্ভাবনার প্রতি ব্রিটিশ বিনিয়োগকারীদের আস্থাকে প্রতিফলিত করে। তবে তথ্য প্রকাশের সীমাবদ্ধতার কারণে ২০২১ সালে বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাজ্যে এফডিআইয়ের অভ্যন্তরীণ স্টক সম্পর্কিত তথ্য পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে যুক্তরাজ্যের ডিপার্টমেন্ট ফর বিজনেস অ্যান্ড ট্রেড।
২০২১ সালে বিদেশে যুক্তরাজ্যের মোট এফডিআই ছিল ১.৮ ট্রিলিয়ন পাউন্ড। ২০২১ সালে, যুক্তরাজ্যের এফডিআইয়ের শীর্ষ গন্তব্য ছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, মোট যুক্তরাজ্যের বহিরাগত এফডিআই স্টকের ২৬.১%, তারপরে নেদারল্যান্ডস (৮.৮%) এবং লুক্সেমবার্গ (৭.২%)।
২০২১ সালে পণ্য ও সেবার জন্য বাংলাদেশে যুক্তরাজ্যের মোট বাজার শেয়ার ছিল ১.১ শতাংশ। এটি ২০২০ সালের তুলনায় ০.২% হ্রাস পেয়েছে। ২০২১ সালে বাংলাদেশে যুক্তরাজ্যের বাজার শেয়ার ছিল ০.৮ শতাংশ। এটি ২০২০ সালের তুলনায় ০.২% বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০২১ সালে বাংলাদেশে যুক্তরাজ্যের বাজার শেয়ার ছিল ২.৬ শতাংশ। যা ২০২০ সালের তুলনায় ২.৫ শতাংশ কম। ২০২১ সালে যুক্তরাজ্যের প্রায় এক হাজার ভ্যাট নিবন্ধিত প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশে পণ্য রফতানি করেছে এবং যুক্তরাজ্যের প্রায় এক হাজার ১০০ ভ্যাট নিবন্ধিত প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ থেকে পণ্য আমদানি করেছে।
যুক্তরাজ্যের ডিপার্টমেন্ট ফর বিজনেস অ্যান্ড ট্রেডের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৩ সালে বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যের বাণিজ্য ভারসাম্য ছিল ২.৪ বিলিয়ন পাউন্ড। ২০১৪ সালে এটি ২.২ বিলিয়ন পাউন্ডে নেমে আসে এবং পরবর্তী দুই বছরে আবার বেড়ে যথাক্রমে ২.৬ বিলিয়ন পাউন্ড এবং ২.৯ বিলিয়ন পাউন্ডে উন্নীত হয়। ২০১৭ সালে, বাণিজ্য মূল্য £ ৩ মার্ক অতিক্রম করে £ ৩.৬ বিলিয়ন। ২০১৮ থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত এই সংখ্যা ধারাবাহিকভাবে ৩.৫ বিলিয়ন পাউন্ড, ৪.০ বিলিয়ন পাউন্ড, ৩.১ বিলিয়ন পাউন্ড এবং ৩.১ বিলিয়ন পাউন্ডের ওপরে ছিল। ২০২২ সালে বাণিজ্যের পরিমাণ লাফিয়ে ৪.৭ বিলিয়ন পাউন্ডের রেকর্ড ছুঁয়েছে।
রিসার্চ অ্যান্ড পলিসি ইন্টিগ্রেশন ফর ডেভেলপমেন্টের (র‌্যাপিড) সাম্প্রতিক এক গবেষণায় বলা হয়েছে, ২০৩০ সালের মধ্যে যুক্তরাজ্যের পোশাক রফতানি হবে ৪.৫ বিলিয়ন ডলার। এদিকে পোশাক খাতের বাইরে অন্যান্য পণ্যের রফতানি ০.৭ বিলিয়ন ডলার থেকে বেড়ে ১.৩ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত হবে।
উল্লেখ্য, স্বল্পোন্নত দেশ থেকে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হওয়ায় বাংলাদেশকে ২০২৭ সাল পর্যন্ত শুল্ক ও কোটামুক্ত বাজার সুবিধা দিতে সম্মত হয়েছে যুক্তরাজ্য। একই সঙ্গে বাংলাদেশের বিভিন্ন খাতে অধিক বিনিয়োগের মাধ্যমে বেসরকারি শিক্ষা খাতে সহযোগিতা বাড়াতে বিশেষভাবে আগ্রহী দেশটি। দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও অগ্রগতিতে বাংলাদেশীরা বিশেষ করে সিলেটের মানুষ ব্যাপক অবদান রাখছে। উপরন্তু, ব্রেক্সিট কার্যকর হওয়ার সাথে সাথে যুক্তরাজ্য স্বাভাবিকভাবেই বিশ্বের অন্যান্য দেশের সাথে বাণিজ্য এবং বিনিয়োগে আরও আগ্রহী হয়ে উঠেছে। যুক্তরাজ্য বাংলাদেশের রফতানির তৃতীয় বৃহত্তম গন্তব্য। যুক্তরাজ্য বাংলাদেশে দ্বিতীয় বৃহত্তম বিনিয়োগকারী। সেক্ষেত্রে ২০২৭ সাল পর্যন্ত দেশের জিএসপি সুবিধা অনিবার্যভাবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন, যুক্তরাষ্ট্র ও অন্য কোথাও প্রভাব ফেলবে। নিঃসন্দেহে এটি বাংলাদেশের জন্য একটি বড় অর্জন।

লেখক: ইরিনা হক, গবেষক, রাজনৈতিক বিশ্লেষক এবং ফ্রিল্যান্স কলামিস্ট।