বিয়ে নয়, মা হওয়ার নেশা তার

:: পা.রি. ডেস্ক ::
প্রকাশ: ১১ মাস আগে

যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যে আটলান্টার বাসিন্দা ইয়েসিনিয়া লাতোরে, যিনি এখন আলোচনায় গর্ভ ভাড়া দেওয়ার জন্য। মা হওয়া তার নেশায় পরিণত হওয়ায় আলোচনায় এসেছেন তিনি। ২৬ বছরের এ তরুণী ইয়েসিনিয়া এরইমধ্যে তিনটি সন্তানের জন্ম দিয়েছেন। এর মধ্যে দুটি সন্তান তার নিজের।

আরেকটি সন্তান তিনি অন্য দম্পতির হয়ে গর্ভ ভাড়া (সারোগেট) দিয়ে জন্ম দিয়েছেন।

এই গর্ভ ভাড়া দিতে গিয়েই সন্তান জন্ম দেওয়ার নেশা পেয়ে বসেছে তাকে। তবে সবার জন্য নয়, যারা স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় মা হতে পারেন না, এমন নারীদের গর্ভ ভাড়া দিয়ে সহযোগিতা করার পরিকল্পনা ইয়েসিনিয়ার। তিনি বলেচেন, ‘আমি শিগগির আবার সারোগেট মা হওয়ার পরিকল্পনা করছি। এ জন্য আমার আর তর সইছে না।’

অবশ্য মুফতে মিলবে না এই সুবিধা। গর্ভ ভাড়া দেওয়া বাবদ তিনি প্রায় ৪৩ লাখ ৯৩ হাজার ৯০৪ টাকা (৪০ হাজার মার্কিন ডলার) ফি নেন। গর্ভ ভাড়া দেওয়া বাবদ ৪০ হাজার ডলার নেওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘মানুষ বুঝতে পেরেছে, সারোগেসি মানে শুধু অর্থ উপার্জন নয়, পারিবারিক জীবন পরিবর্তন করে দেওয়া একটা অমূল্য বিষয়। এটাই আমি করছি। আর এ ক্ষেত্রে অর্থ একটি বোনাসমাত্র। পরিবার আমার কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আর আমি যা করছি, তার জন্য গর্বিত।’

গর্ভ ভাড়া দিয়ে আলোচনায় আসা ইয়েসিনিয়া সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টিকটকেও বেশ জনপ্রিয়। এখানে তার ফলোয়ারের সংখ্যা ২ লাখ ২২ হাজার ৭০০। তিনি টিকটকে তার এই মা হওয়ার অভিজ্ঞতার কথা অকপটে শেয়ার করেছেন। এ কারণে সারোগেটের (অন্যের গর্ভে সন্তান) মাধ্যমে হতে চাওয়া সম্ভাব্য মা-বাবাদের যারা অনলাইনে আছেন, তাদের কাছেও তিনি বেশ পরিচিত।

২০১৭ সালে ইয়েসিনিয়ার প্রথম সন্তান টাইসনের জন্ম হয়। এর পর থেকেই তিনি গর্ভধারণের সময়কার অভিজ্ঞতার নেশায় পড়ে যান। ইয়েসিনিয়া বলেন, ‘আমি গর্ভাবস্থার সবকিছুর প্রেমে পড়েছি। আমি বেবি বাম্প, নিয়মিত চিকিৎসকের কাছে যাওয়া ও পেটে শিশুর নড়াচড়াটা বেশ উপভোগ করি। ছেলে হওয়ার পর পরিবার নিয়ে আমি খুশি। কিন্তু আমি আবারও সন্তান জন্ম দিতে চাই।’

তবে ২০১৮ সালে গর্ভধারণের পাঁচ সপ্তাহ পর ইয়েসিনিয়া গর্ভপাতের শিকার হন। এই বেদনাদায়ক অভিজ্ঞতা তাকে অন্যদের জন্য সারোগেট মা হতে অনুপ্রাণিত করেছিল। এ বিষয়ে মার্কিন এই তরুণী বলেন, একবার গর্ভপাত হওয়ার কারণে আমি গর্ভ ভাড়া দেওয়ার পরিকল্পনা করি। গর্ভপাতের সময়টা আমার জন্য চরম দুঃসময় ছিল। এটা আমার জীবনকে চিরদিনের জন্য বদলে দিয়েছে। সে সময় খুব আশাহত হয়েছিলাম। অনেক মানুষ গর্ভধারণ করতে পারেন না। তাঁদের কথা ভেবে একই সঙ্গে আগে একটি সন্তানের জন্ম দেওয়ার কারণে কৃতজ্ঞও ছিলাম।’

২০১৯ সালের অক্টোবরে দ্বিতীয় ছেলে সন্তান ট্রে জুনিয়রের জন্ম দেন ইয়েসিনিয়া। এরপর আবারও অন্তঃসত্ত্বা হতে ব্যাকুল হয়ে ওঠেন তিনি।

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে সারোগেসির মাধ্যমে প্রথম একটি সুস্থ ছেলেশিশুর জন্ম দিয়েছেন ইয়েসিনিয়া। তিনি বলেন, ‘ওই পরিবারকে তাদের সন্তান দিয়ে দেওয়াটা আমার জন্য কঠিন ছিল না। তাদের জন্য কিছু করতে পেরে আমি আনন্দিত। ভবিষ্যতে ওই শিশুকে আমি দেখতে পারবো। প্রতি সপ্তাহে ওই শিশুর মা তার ছবি তুলে আমাকে পাঠিয়ে দেন। এটা সত্যিই আমাকে আনন্দিত করছে।’