বাংলাদেশের প্রতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাম্প্রতিক নীতি কি ত্রুটিপূর্ণ?

:: তিলোত্তমা রানী চারুলতা ::
প্রকাশ: ১১ মাস আগে

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং বাংলাদেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক ব্যাপক এবং এর ঐতিহাসিক উৎস রয়েছে। গত পঞ্চাশ বছরে দুই দেশের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে উঠেছে, যা অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, পরিবেশ সুরক্ষা, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াই, গণতান্ত্রিক শাসন এবং মানবাধিকার সুরক্ষার মতো ক্ষেত্রে সহযোগিতা বৃদ্ধি করেছে। কিন্তু মার্কিন প্রশাসন এবং প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সাম্প্রতিক পদক্ষেপ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে উত্তেজনা সৃষ্টি করেছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দুর্বল নীতিগত সিদ্ধান্ত যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশের মধ্যে দৃঢ় সম্পর্কের ক্ষেত্রে কিছুটা অশান্তি সৃষ্টি করেছে।

ইউএস-বাংলাদেশ সম্পর্কের প্রথম ফাটলটি ২০২১ সালে র‌্যাবের ব্যক্তিদের অনুমোদনের নীতি দ্বারা চিহ্নিত করা হয়েছিল। কোনো বিবেচনা ছাড়াই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বিতর্কিত ভাবে উচ্চ-পদস্থ র‌্যাব কর্মকর্তাদের নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যা বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়গুলির উপর হস্তক্ষেপ। ২০২২ সালে ঢাকায় মার্কিন রাষ্ট্রদূত হ্যাস অভিযোগ করেছিলেন যে বাংলাদেশে নির্বাচনে অনিয়ম হয়েছে যা তার কূটনৈতিক কাজ নয়। কিন্তু তিনি খুব কমই বিরোধী দলগুলির রাজনৈতিক সহিংসতার ইঙ্গিত দিয়েছেন, যারা ২০১৪ সালে পেট্রোল বোমা হামলা চালিয়েছিল এবং দেশব্যাপী সন্ত্রাসবাদ এবং ব্যাপক ভাঙচুর করেছিল। আবার, ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে, মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্টের কাউন্সেলর ডেরেক চোলেট, বাংলাদেশে গণতন্ত্রের পতন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছিলেন এবং সতর্ক করেছিলেন যে এটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সহযোগিতা সীমিত করবে।

২০২৩ সালের মে মাসে জাতীয় নির্বাচনের আগে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নতুন ভিসা নীতি ঘোষণা করা হয়েছিল। মার্কিন সেক্রেটারি অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন একটি বিবৃতি জারি করেছেন যা ওয়াশিংটনের একটি সতর্কতার মতো বলে মনে হচ্ছে যে এটি বাংলাদেশি নাগরিকদের উপর ভিসা বিধিনিষেধ আরোপ করবে যারা গণতান্ত্রিক নির্বাচন প্রক্রিয়াকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে যা যেকোনো পরিস্থিতিতে বহিরাগত শক্তির আওতার বাইরে। ওই ঘটনার পর ছয়জন কংগ্রেসপারসন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টকে চিঠি লিখে বাংলাদেশে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন নিশ্চিত করতে পদক্ষেপ নেওয়ার অনুরোধ করেন। কেউ প্রশ্ন তুলতে পারে: এই পদক্ষেপগুলি কি কোনো কূটনৈতিক নিয়ম পূরণ করে? বাংলাদেশ কি মার্কিন প্রশাসনের অধীনে একটি প্রজাতন্ত্র? বাংলাদেশের জনগণ কি বোকা যে তারা মার্কিন কর্মকাণ্ডের পেছনের কূটনীতি ও ভূ-রাজনীতি বোঝে না? বাংলাদেশের একটি কঠিন রাজনৈতিক প্রক্রিয়া এবং গতিশীলতা রয়েছে। এটা নতুন নয়। বাংলাদেশের রাজনৈতিক ভূখণ্ডে যুক্তরাষ্ট্র কেন হস্তক্ষেপের চেষ্টা করছে?

স্পষ্টতই, মানবাধিকার ও গণতন্ত্রের নামে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশকে নিয়ে নানা নীতি লুণ্ঠন করছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এই সিদ্ধান্তটি একাধিক কারণ দ্বারা পরিচালিত, তবে এই সিদ্ধান্তগুলির ভূ-রাজনৈতিক মাত্রা রয়েছে৷ প্রথমত, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ এবং তাইওয়ান সংকটের পরিপ্রেক্ষিতে যুক্তরাষ্ট্র চায় বাংলাদেশ ব্লকের রাজনীতিতে যোগদান করুক। বাংলাদেশ সর্বদা বৈশ্বিক রাজনীতিতে জোট নিরপেক্ষ অবস্থান বজায় রেখেছে, বৈদেশিক নীতি পছন্দের ক্ষেত্রে নিরপেক্ষতা অনুসরণ করেছে এবং বহুমুখীতার ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। জাতিসংঘে যুদ্ধ চলমান থাকায় রাশিয়ার নিন্দা জানাতে অন্যান্য দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর সাথে বাংলাদেশ দুবার বিরত থাকে। তবে মানবাধিকার প্রশ্নে বাংলাদেশ ইউক্রেনের পক্ষে ভোট দিয়েছে।

এমনকি তাইওয়ান ইস্যুতেও বাংলাদেশ ‘এক চীন নীতির’ প্রতি তার অবস্থান দৃঢ়ভাবে পুনর্ব্যক্ত করেছে। তাইওয়ান ইস্যুটি এখনও পশ্চিম থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং তার মিত্রদের জন্য একটি প্রধান উদ্বেগ হিসাবে রয়ে গেছে এবং দক্ষিণ এশিয়ার মিত্ররা চায় যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তাইওয়ানের প্রতি তাদের নীতি পরিবর্তন করুক। দ্বিতীয়ত, ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বৃহত্তর স্বার্থ রয়েছে। তাই এই অঞ্চলে চীনের দৃঢ় অভিপ্রায়কে মোকাবেলা করতে নিরাপত্তা জোট তৈরি করছে। সেই লক্ষ্য অর্জনের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র চেয়েছিল বাংলাদেশ কেইউএডি বা আইপিএস-এর মতো উদ্যোগে যোগদান করুক এবং চীনকে চারদিক থেকে কোণঠাসা করুক।

বাংলাদেশ দৃঢ়ভাবে কোনো নিরাপত্তা জোটে যোগদানকে প্রত্যাখ্যান করেছে এবং বিদেশী নীতির শান্তিপূর্ণ প্রকৃতির কারণে যেকোনো উদ্যোগের জন্য অর্থনৈতিক কূটনীতিকে অগ্রাধিকার দিয়েছে যা প্রায়শই সংবিধান দ্বারা প্রবর্তিত হয়। ২০২২ সালের ডিসেম্বরে বাংলাদেশ তার ইন্দো-প্যাসিফিক দৃষ্টিভঙ্গি প্রবর্তন করে এবং একটি স্থিতিশীল ও শান্তিপূর্ণ অঞ্চলের গুরুত্বের প্রতিধ্বনি করে তবে এই অঞ্চলে চীনের ভূমিকার উপরও জোর দেয়।

তৃতীয়ত, যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করার চেষ্টা করছে যা সার্বভৌমত্বের লঙ্ঘন। এটি গণতন্ত্র ও মানবাধিকারকে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করার হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে এবং পশ্চিমকেন্দ্রিক পররাষ্ট্রনীতি বেছে নেওয়ার জন্য দেশটির ওপর ব্যাপক চাপ সৃষ্টি করছে। বাংলাদেশের নাগরিকরা এ ধরনের নিষেধাজ্ঞার চরম সমালোচনা করছেন। এটি গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের প্রতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অঙ্গীকারের ধারাবাহিকতা এবং সততাকে প্রশ্নবিদ্ধ করে যখন এটি বিশ্বের কিছু অংশে কর্তৃত্ববাদী সরকারকে সমর্থন করে এবং একই সাথে বিশ্বের অন্যান্য অংশে গণতন্ত্র এবং মানবাধিকারের পক্ষে সমর্থন করে। এই ধরনের দ্বন্দ্ব মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গণতান্ত্রিক এজেন্ডার বিশ্বাসযোগ্যতাকে ক্ষতিগ্রস্ত করার এবং দ্বিগুণ মানের অভিযোগের দিকে পরিচালিত করার সম্ভাবনা রয়েছে।

চতুর্থত, বাংলাদেশ ও চীনের অর্থনৈতিক নৈকট্য নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র টেনশনে পরিণত হয়েছে। চীনের বাজারে বাংলাদেশি পণ্য ৯৯% শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার পায়।

এছাড়াও, বাংলাদেশ তার অবকাঠামোগত উন্নয়ন নিশ্চিত করতে বিআরআই-তে যোগ দিয়েছে। বিআরআই-এর মাধ্যমে চীন দেশে প্রায় ৩৯ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেছে। পদ্মা বহুমুখী সেতু এবং বঙ্গবন্ধু কর্ণফুলী টানেল সম্পন্ন হওয়ায় এটি এই দুই রাষ্ট্রের মধ্যে একটি শক্তিশালী দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে চিহ্নিত করেছে। বাংলাদেশও পশ্চিমা-বক্তৃত “ঋণের ফাঁদে” পড়ে না এবং যথেষ্ট বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বজায় রাখে। এমনকি যেসব ক্ষেত্রে বাংলাদেশ মার্কিন ডলারে পরিশোধ করতে অসুবিধার সম্মুখীন হচ্ছে সেসব ক্ষেত্রেও তারা চীনা আরএমবিতে অর্থ প্রদানের আশ্রয় নিয়েছে। মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে চীনের মধ্যস্থতা চাইছে বাংলাদেশ। এসব ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের জন্য কোনো সারগর্ভ নীতি দিতে ব্যর্থ হয়েছে।

এছাড়াও, ২৬ মে, ২০২৩-এ চীনের পররাষ্ট্র বিষয়ক উপমন্ত্রী, সান ওয়েইডং, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং বাংলাদেশের মধ্যে সম্পর্কের উচ্চতর টানাপোড়েনের সময়ে ঢাকায় তিন দিনের সফর করেন। চীনের গ্লোবাল ডেভেলপমেন্ট ইনিশিয়েটিভ-এ যোগ দেওয়ার কথা ভাবছে বাংলাদেশ। যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে এই সিদ্ধান্ত ভালো বসেনি। পঞ্চমত, বাংলাদেশ ও রাশিয়ার মধ্যে ক্রমবর্ধমান সম্পর্কের ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্র আরও সন্দিহান। রূপপুর পাওয়ার পারমাণবিক কেন্দ্র অবিচ্ছিন্ন বন্ধুত্বের প্রতীক। বাংলাদেশ ২০৪১ সালের মধ্যে উচ্চ আয়ের দেশ এবং ২০৫০ সালের মধ্যে একটি উন্নত অর্থনীতিতে পরিণত হওয়ার লক্ষ্য অনুসরণ করছে। বাংলাদেশ জ্বালানি টেকসইতাকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে এবং সেই লক্ষ্যে পৌঁছাতে রাশিয়া বাংলাদেশকে সহায়তা করছে।

তবে মার্কিন নীতিগত ভুলের অভ্যন্তরীণ মাত্রাকে উপেক্ষা করা যায় না। প্রথমত, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বিরোধী দলগুলির বর্ণনার উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করছে, যা বেশিরভাগই প্রমাণ ছাড়াই। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অনাবাসী বাংলাদেশী বিরোধী দলের সমর্থকদের মধ্যেও বিরোধীদের দাবির প্রতিধ্বনি পাওয়া গেছে। মার্কিন নীতিনির্ধারকরা এই ধরনের লবি রাজনীতি বুঝতে ব্যর্থ হচ্ছেন এবং ভুল করছেন। যুক্তরাষ্ট্র যে রাজনৈতিক দলের ওপর জোর দিচ্ছে তাদের বাংলাদেশের জন্য কোনো দৃষ্টিভঙ্গি বা কোনো নির্দিষ্ট নির্বাচনী এজেন্ডা নেই। বাংলাদেশে ভিসা বিধিনিষেধ প্রবর্তনের ধারণাটি সেই দলগুলির দ্বারা অত্যন্ত প্রশংসিত হয়েছিল কারণ তারা এটির পক্ষে ছিল। বর্তমান সরকারের নির্বাচনী এজেন্ডা ছিল যেমন ২০০৮ সালে ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’, ২০১৪ এবং ২০১৮ সালে ‘উন্নয়ন’ এবং বর্তমানে ২০২৩ সালে ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ গড়ার এজেন্ডা অনুসরণ করছে।

বিপরীতে, যুক্তরাষ্ট্র অতীতের দিকে তাকাচ্ছে না। এই ধরনের বিরোধী দলগুলোর শাসনামলে বাংলাদেশ দুর্নীতির সূচকে প্রথম স্থান অধিকার করে এবং বাংলাদেশে সন্ত্রাসবাদ উল্লেখযোগ্যভাবে গড়ে ওঠে এবং এমনকি শাসকগোষ্ঠীর পৃষ্ঠপোষকতাও ছিল। এমনকি ঐতিহাসিক প্রমাণ থেকেও এই সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া যায় যে, বাংলাদেশে শাসনব্যবস্থা পরিবর্তনের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র যে বিশেষ সুবিধা চাইছে তা হয়তো সে পাবে না। দলটি বর্তমান সরকারের বিদ্যমান নীতিগুলিকে সমর্থন করতে পারে কারণ দক্ষিণ এশিয়া পররাষ্ট্র নীতির আমলাতান্ত্রিক মডেল দ্বারা চালিত। এ ধরনের নীতির মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র আরেকটি ভুল করছে তা হলো ইউক্রেন ইস্যু, রোহিঙ্গা ইস্যু বা তাইওয়ান ইস্যুতে বিরোধী দলের কোনো স্থায়ী অবস্থান নেই। বাংলাদেশের জনগণ চীন, রাশিয়া বা ইউক্রেন সম্পর্কে তাদের অবস্থান পরিবর্তন করবে না বলে জবরদস্তিমূলক পরিকল্পনা এবং বাংলাদেশে শাসনব্যবস্থার পরিবর্তন চাওয়া মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জন্য বিপরীতমুখী হতে পারে।

দ্বিতীয়ত, মার্কিন নীতি কিছুটা পক্ষপাতদুষ্ট কারণ প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক এবং অনলাইন মিডিয়া সহ মিডিয়া আউটলেটগুলি বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া সম্পর্কিত মিথ্যা শিরোনাম সহ সংবাদ প্রকাশ করে মার্কিন হস্তক্ষেপের জন্য একটি ভুয়া অজুহাত তৈরি করেছে। কিন্তু এই সম্পৃক্ততার মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে হস্তক্ষেপ করে বাংলাদেশের অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন ও গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে ক্ষুণ্ন করছে। এই মনোভাবের ফলে যুক্তরাষ্ট্র একটি দায়িত্বশীল বৈশ্বিক শক্তি হিসেবে তার বিশ্বাসযোগ্যতা হারাচ্ছে। তৃতীয়ত, বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে হস্তক্ষেপের জন্য যুক্তরাষ্ট্র ইউরোপীয় দেশগুলোর ওপর অতিরিক্ত চাপও দিচ্ছে। যেহেতু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশকে কোণঠাসা করার জন্য এই ধরনের উদ্যোগ নিচ্ছে বাংলাদেশ ব্রিকসের মতো উদ্যোগে যোগদান এবং এমনকি মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলিতেও এর আরএমজি রপ্তানিতে বৈচিত্র্য আনতে ফোকাস করছে। বাংলাদেশের ভৌগোলিক অবস্থান এবং ক্রমবর্ধমান অর্থনীতির কারণে এর কৌশলগত তাৎপর্য বিশ্ব রাজনীতিতে উচ্চ স্তরে পৌঁছেছে। তদুপরি, খুব সঠিকভাবে ইইউ বাংলাদেশের নিষেধাজ্ঞার ক্ষেত্রে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নির্দেশ মানতে রাজি নয়।

সংক্ষেপে, এটি জোর দিয়ে বলা যেতে পারে যে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে সাধারণভাবে এবং কূটনীতিতে বিশেষ করে বন্ধুত্বপূর্ণ অংশীদার এবং একটি উদীয়মান অর্থনীতির জন্য ‘নির্বাচিত এবং অপমানজনক ভিসা নীতি’র মতো একটি জবরদস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা একটি বড় নীতিগত ভুল। ১৭০ মিলিয়ন জনসংখ্যার বাংলাদেশ। বাংলাদেশের নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় ভিসা নীতি এবং কয়েকটি অকূটনৈতিক এবং পেশী নমনীয় পদক্ষেপের মাধ্যমে প্রভাব বিস্তারের প্রক্রিয়া কোনো বিবেচনা ও ঐতিহাসিক প্রমাণ থেকে অসহায়। বাংলাদেশ ইউক্রেন বা মিশর বা তিউনিসিয়া নয়। এটি এমন একটি দেশ যেখানে জনগণের আত্মমর্যাদা, মুক্তিযুদ্ধে আত্মত্যাগ, প্রাচীনতম এবং তৃণমূল ভিত্তিক ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দলের শক্তিশালী নেতৃত্ব এবং দ্রুত বর্ধনশীল ইসি।

 

লেখক: তিলোত্তমা রানী চারুলতা; একজন স্বাধীন গবেষক, কানাডাপ্রবাসী। বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক বিষয়াবলী ও রোহিঙ্গা শরণার্থী বিষয়ে আগ্রহী।