আরসিইপিতে বাংলাদেশের যোগদানের সিদ্ধান্ত এবং এর সুবিধা-অসুবিধা

:: ডোরিন চৌধুরী ::
প্রকাশ: ১০ মাস আগে

সম্প্রতি বাংলাদেশ রিজিওনাল কমপ্রিহেনসিভ ইকোনমিক পার্টনারশিপে (আরসিইপি) যোগদানের উদ্যোগ নিয়েছে। একটি আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে সম্মত হয়েছে যে দেশটি আরসিইপিতে যোগদানের আবেদন করবে এবং আলোচনার পরে সুযোগ তৈরি হলে চীনের নেতৃত্বে বিশ্বের বৃহত্তম বাণিজ্য ব্লকের সদস্য হবে। অদূর ভবিষ্যতে, বাংলাদেশ আরসিইপিতে যোগদানের আগ্রহ প্রকাশ করে একটি আনুষ্ঠানিক চিঠি পাঠাতে পারে। বাংলাদেশের জন্য আরসিইপি এর সাথে চুক্তি স্বাক্ষর করা গুরুত্বপূর্ণ কারণ এলডিসি গ্র্যাজুয়েশনের পর শুল্ক সুবিধা ধরে রাখতে দেশটিকেও গ্লোবাল ভ্যালু চেইনে যোগ দিতে হবে।
২০২০ সালের নভেম্বরে মুক্তবাণিজ্য চুক্তির জন্মের পর থেকেই বাংলাদেশ আরসিইপি-তে যোগদানের সুবিধা-অসুবিধা নিয়ে আলোচনা রয়েছে। অনেক বিশ্লেষক বাংলাদেশের আরসিইপি -তে যোগদানের অনেক ভালো-মন্দ উল্লেখ করেছেন। কিন্তু প্রশ্ন থেকে যায়, আরসিইপিতে যোগদান কি বাংলাদেশকে কি সুবিধা দিতে পারে? উত্তর খোঁজার জন্য, আমাদের আরসিইপি কী এবং আরসিইপি-তে যোগদানের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের জন্য যুক্তি কী তা অনুসন্ধান করতে হবে।

এক নজরে আরসিইপি
রিজিওনাল কমপ্রিহেনসিভ ইকোনমিক পার্টনারশিপ (আরসিইপি) মূলত একটি মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি। চীনের প্রচেষ্টায় আসিয়ানের দশ সদস্য, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ড একটি মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি স্বাক্ষর করার জন্য ২০২০ সালে রাজী হয় যা সদস্য দেশগুলিকে শুল্ক বাধা অতিক্রম করতে এবং এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে শুল্কমুক্ত বাণিজ্য নিশ্চিত করে। আরসিইপির বর্তমান সদস্য ১৫টি দেশ, যারা একত্রে ২দশমিক ৩ বিলিয়ন মানুষের প্রতিনিধিত্ব করে এবং এদের মোট জিডিপি ২৫ দশমিক ৮ ট্রিলিয়ন ডলার- যা বৈশ্বিক জিডিপির ৩০ শতাংশ, এবং এদের বৈদেশিক বিনিয়োগ বা এফডিআই বৈশ্বিক প্রবাহের ৩১ শতাংশ। প্রাইস ওয়াটার হাউস কুপার্সের অনুমান অনুসারে, ২০৫০ সালের মধ্যে আরসিইপি সদস্য দেশগুলির জিডিপি প্রায় ২৫০ ট্রিলিয়ন ডলার হতে পারে।
আরসিইপি’র ধারণাটি ২০১১ সালে ইন্দোনেশিয়ার বালিতে গৃহীত হয়েছিল। ভারতও আলোচনায় উপস্থিত ছিল কিন্তু পরে যোগ না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। আরসিইপি আমলাতান্ত্রিক ঝামেলা কমাতে চায় যেমন একটি ‘ইউনিফাইড রুল অফ অরিজিন’ প্রতিষ্ঠা করা, শুল্ক বাধা অপসারণ করা এবং এই অঞ্চলে সরবরাহ চেইন তৈরি করা।
আরসিইপি-সদস্য দেশগুলির সাথে বাংলাদেশের দৃঢ় বাণিজ্য সম্পর্ক রয়েছে কারণ দেশটি এই দেশগুলি থেকে ২৪ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার সমমূল্যের পণ্য এবং ২ দশমিক ৬ বিলিয়ন ডলারের পরিষেবা আমদানি করে। বাংলাদেশ ৩.৯ বিলিয়ন ডলারের পণ্য এবং ১.৮ বিলিয়ন ডলারের সেবা রপ্তানি করে। বাংলাদেশ আরসিইপি দেশগুলি থেকে আসা আমদানি থেকে তার মোট শুল্ক রাজস্বের ৫৫ দশমিক ৩৩ শতাংশ অর্জন করে।
আরসিইপি-এর গঠনতন্ত্র অনুযায়ী, যেকোনো দেশ তাদের যোগদানের প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার ১৮ মাস পর থেকে ব্লকে সদস্যপদ পাওয়ার যোগ্য। এওং, আগ্রহী দেশগুলি জুন ২০২৩ থেকে আরসিইপি সদস্যতার জন্য তাদের আবেদন জমা দিতে পারবে। এর অর্থ হল যদি বাংলাদেশ এখন বা এই বছরের শেষের দিকে আবেদন করে, তাহলে বাংলাদেশ ২০২৫ সাল নাগাদ আরসিইপির সদস্য হবে। বাংলাদেশ ছাড়াও নেপাল ও শ্রীলঙ্কাও এই ব্লকে যোগ দিতে আগ্রহী।

আরসিইপি-তে যোগদানের বাংলাদেশের সুবিধা-অসুবিধা
বাংলাদেশের ট্যারিফ কমিশন তার গবেষণায় আরসিইপি-তে যোগদানের সুবিধা এবং অসুবিধাগুলি পরীক্ষা করেছে। বাংলাদেশ যদি আরসিইপি-এর সদস্য হয়, তাহলে বিশ্ব বাজারে এর রপ্তানি ১৭ দশমিক ৩৭ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে, যা ৫ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে যাবে। এই রপ্তানি বৃদ্ধির একটি উল্লেখযোগ্য অংশ আসবে পোশাক শিল্প হতে, যার ফলে এই সেক্টরে দক্ষ ও অদক্ষ উভয় শ্রমিকের চাহিদা আনুমানিক ১৮ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে। সামগ্রিকভাবে, আরসিইপি-তে যোগদানের ফলে দেশের জিডিপি ০ দশমিক ২৬ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে বলে আশা করা হচ্ছে।
তবে, এলডিসি গ্র্যাজুয়েশনের প্রেক্ষাপটে আরসিইপি দেশের জন্য সবচেয়ে বেশি সুবিধা প্রদান করবে। যেহেতু বাংলাদেশ ২০২৬ সালে উন্নয়নশীল দেশে রুপান্তরিত হওয়ার কথা, এটি ডব্লিউটিও-এর শুল্ক-মুক্ত সুবিধার অধীনে বর্তমান প্রেফারেনশিয়াল ট্রেড এগ্রিমেন্ট বা অগ্রাধিকারমূলক প্রবেশের সুবিধা হারাবে, যেমন জিএসপি এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের এভ্রিথিং বাট আর্মস (ইবিএ)। আবার, যেহেতু বাংলাদেশের রপ্তানি মূলত শুল্ক বাধা অতিক্রম করতে অগ্রাধিকারমূলক বাজারের উপর নির্ভরশীল, সেই সময়ে রপ্তানি নিশ্চিত করার জন্য নতুন ব্যবস্থার প্রয়োজন হবে। ডব্লিউটিওর একটি অনুমান অনুযায়ী, উন্নয়নশীল দেশ হওয়ার পর বাংলাদেশ তার বৈদেশিক বাণিজ্যের ১৫% হারাবে। আরেকটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে অগ্রাধিকারমূলক প্রবেশাধিকারের অভাবে বাংলাদেশের রপ্তানি ৭ বিলিয়ন ডলার কমে যাবে। এই প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশের শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার প্রয়োজন এবং সে জন্য মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বাণিজ্য সৃষ্টি এবং ডাইভারশন যেকোন মুক্তবাণিজ্য চুক্তির সাধারণ বৈশিষ্ট্য। একটি বাণিজ্য ব্লক তৈরি করার পরে, এটি স্বাভাবিকভাবেই কম কার্যকর অঞ্চল থেকে বাণিজ্যকে সরিয়ে নিজ অঞ্চলে নিয়ে আসে।
সুতরাং, স্নাতকোত্তর পর্বে শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করার মাধ্যমে এবং রপ্তানি ১৭ শতাংশ এবং জিডিপি ০ দশমিক ২৬ শতাংশ বৃদ্ধির মাধ্যমে বাংলাদেশ দুটি দিক থেকে উপকৃত হবে।
সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) বিশিষ্ট ফেলো, অধ্যাপক মুস্তাফিজুর রহমানও বিশ্বাস করেন যে এটি বাংলাদেশের জন্য আরসিইপি ব্লকে যোগদান একটি ইতিবাচক সিদ্ধান্ত হবে কারণ এটি সদস্য রাষ্ট্রগুলি থেকে অগ্রাধিকারমূলক প্রবেশ সুবিধা নিশ্চিত করবে। এছাড়াও, আরসিইপি স্বাক্ষর করা বাংলাদেশকে বৈদেশিক বিনিয়োগ আকর্ষণ করতে সহায়তা করবে কারণ বিনিয়োগকারীদের জন্য বাজার হবে পুরো আরসিইপি জোন।
অন্যদিকে, আরসিইপিতে যোগদানও বেশ কিছু নেতিবাচক দিক নিয়ে আসবে। বাংলাদেশ যেহেতু মুক্ত বাণিজ্য এলাকার একটি অংশ হবে, তাই এটি আরসিইপি সদস্য দেশগুলি থেকে আমদানি থেকে উৎপন্ন কর রাজস্ব হারাবে। বর্তমানে, বাংলাদেশ তার মোট কর রাজস্বের ৫৫ দশমিক ৩৩ শতাংশ আয় করে এসব আমদানি থেকে। স্বাক্ষর করার পর, এই রাজস্ব আদায়ে বিরূপ প্রভাব পড়বে। আরসিইপিতে যোগ দিলে বাংলাদেশের আমদানি ১৪.৪৬ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে। এধরণের মুক্তবাণিজ্য এবং বাণিজ্য উদারকরণ অনেক দেশীয় শিল্পকে প্রভাবিত করবে। এখনকার মতো সেই শিল্পগুলো আর সুরক্ষিত থাকবে না।
যেহেতু ট্যারিফ কমিশন অংশীদার মন্ত্রনালয়গুলির সাথে আলাপ করেই সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে একটি যৌথ সমীক্ষা চালিয়েছিল, এটি সম্ভবত খারাপের চেয়ে ভাল হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। অধিকন্তু, নব্যউদারবাদী অর্থনীতিতে, শুল্ক বাধা কমানোর জন্য একটি বিশ্বব্যাপী প্রচেষ্টা রয়েছে। এই প্রেক্ষাপটে, কর এবং শুল্ক রাজস্বের উপর নির্ভর করাটা কিছুটা সেকেলে ধারণাও বটে।
যাইহোক, আপাত মনে হচ্ছে, সুবিধাগুলি অসুবিধার চেয়ে বেশি। তবে, যোগদানের প্রাক্কালে বিস্তৃত প্রস্তুতির প্রয়োজন যাতে অসুবিধা বা নেতিবাচক প্রভাব বৃদ্ধি না পায়। প্রস্তুতির মধ্যে রয়েছে নির্দিষ্ট সেক্টরে সক্ষমতা বৃদ্ধি, রপ্তানি বহুমুখীকরণ, এবং পারস্পরিক স্বীকৃতি এবং মানদন্ড ব্যবস্থা প্রণয়ন। এই ব্লকে যোগদানের একটি প্রতিশ্রুতিশীল ফলাফল হল রপ্তানিমুখী বিনিয়োগের সম্ভাব্য বৃদ্ধি। বাংলাদেশেরও উচিত বাজারের চাহিদা অনুযায়ী তার সম্ভাব্য বিনিয়োগের সুযোগ নিয়ে ব্যাপক প্রচার চালানো।
সঠিকভাবে ব্যবহার করা হলে আরসিইপিতে যোগদান বাংলাদেশের জন্য একটি কল্যাণকর সিদ্ধান্ত হবে। তবে এক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাবও সহ্য করতে হবে কারণ আরসিইপিতে যুক্ত হলে দেশীয় শিল্পের সুরক্ষা কমে যাবে, আমদানি বাড়াবে এবং দেশের জন্য কর ও শুল্ক রাজস্ব হ্রাস পাবে। একই সঙ্গে এটি বাংলাদেশকে অগ্রাধিকারমূলক বাজার ব্যবস্থা অব্যাহত রাখতে, রপ্তানি বাড়াতে এবং বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণ করতে সহায়তা করবে। যেহেতু বাংলাদেশ গ্র্যাজুয়েশনের পর ইইউ থেকে জিএসপি+ স্কিম চাইছে, তাই মনে হচ্ছে সরকারের নীতি মূলত অগ্রাধিকারমূলক প্রবেশ সুবিধার মাধ্যমে দেশের রপ্তানি অব্যাহত রাখা । এইক্ষেত্রে, আরসিইপি উপরে উল্লেখিত নেতিবাচক প্রভাবের বিনিময়ে দেশের জন্য আরও বেশি সুবিধা দেবে।

 

লেখক: ডোরিন চৌধুরী; নেদারল্যান্ডসের গ্রোনিয়েন বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ডক্টোরাল গবেষক।