নেপাল-বাংলাদেশের বিদ্যুৎ চুক্তি এই অঞ্চলে সহযোগিতার নতুন মাত্রা

:: জুবেদা চৌধুরী ::
প্রকাশ: ১১ মাস আগে

নেপাল থেকে ৪০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানির জন্য ২৫ বছর মেয়াদি চুক্তি করেছে বাংলাদেশের কর্মকর্তারা। বিদ্যুতের জন্য প্রযোজ্য মূল্য ব্যতীত, চুক্তির সমস্ত প্রযুক্তিগত এবং বাণিজ্যিক অংশদুই দেশের মধ্যে সম্মত হয়েছে বলে জানা গেছে। এনইএ’র এক কর্মকর্তার উদ্ধৃতি দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়, নেপালি পক্ষ ‘সদয় ইঙ্গিত হিসেবে শালীন শুল্ক’ দিতে চায়, কারণ চুক্তিটি দুই সরকারের মধ্যে হবে।
গবেষণায় দেখা গেছে, বাংলাদেশে বর্তমান বিদ্যুতের হারকে গাইড হিসেবে ব্যবহার করে ট্যারিফ নির্ধারণ করা হতে পারে।
নেপাল, ভারত ও বাংলাদেশ নেপাল থেকে ভারতীয় ভূখণ্ড হয়ে বাংলাদেশে বিদ্যুৎ সঞ্চালনের বিষয়ে সমঝোতায় পৌঁছানোর পরে পরিকল্পিত চুক্তিটি আনুষ্ঠানিক হয়ে উঠবে।
আন্তঃসীমান্ত বিদ্যুৎ বাণিজ্যের জন্য বাংলাদেশকে সরাসরি ভারতীয় নোডাল এজেন্সিকে সেবা ও সঞ্চালন খরচ পরিশোধ করতে হবে। প্রস্তাবিত বিদ্যুৎ ক্রয় বিক্রয় চুক্তির খসড়ায় বলা হয়েছে যে এই ফিগুলি ভারতের উন্মুক্ত প্রবেশাধিকার প্রবিধান অনুসারে মূল্যায়ন করা হবে।
প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশ ও নেপাল হাইভোল্টেজ বহরমপুর-ভেড়ামারা সঞ্চালন লাইনে সীমান্ত দিয়ে বিদ্যুৎ বাণিজ্যের জন্য ভারতের কাছে অনুমতি চাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
গত বছরের মে মাসে বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত জ্বালানি সচিব পর্যায়ে যৌথ স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠকে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (বিপিডিবি), এনইএ এবং ভারতীয় কোম্পানি এনটিপিসি বিদ্যুৎ বাণিজ্য নিগম লিমিটেডের (এনভিভিএন) মধ্যে একটি ত্রিপক্ষীয় চুক্তি স্বাক্ষরের সিদ্ধান্ত হয়।
চুক্তি স্বাক্ষরের পর এনভিভিএন নেপালকে বাংলাদেশে বিদ্যুৎ রফতানির অনুমতি দেবে।
নেপাল ও বাংলাদেশের মধ্যে সহযোগিতার অন্যতম সম্ভাবনাময় ক্ষেত্র হলো জ্বালানি খাত। নেপালের ১৫তম পঞ্চবার্ষিকী উন্নয়ন পরিকল্পনায় বিদ্যুৎ রফতানির পরিকল্পনার কথা বলা হয়েছে। আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে নেপাল তার বর্তমান ১,২৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়িয়ে ৫,০০০ মেগাওয়াটেরও বেশি করতে চায়। বাংলাদেশ অর্থ ও আরো জ্বালানি উৎপাদন করতে চায় এবং নেপাল থেকে অতিরিক্ত জ্বালানি আমদানি করতে চায়। উল্লেখ্য, গ্রীষ্মকালে বাংলাদেশ ও ভারত বেশি বিদ্যুৎ ব্যবহার করে, যা তাদের ব্যস্ততম মৌসুম।

গত ১৬ মে পটুয়াখালীর পায়রা বিদ্যুৎকেন্দ্র কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত যৌথ স্টিয়ারিং কমিটির (জেএসসি) পঞ্চম বৈঠকে ঢাকা ও কাঠমান্ডু তাদের প্রতিবেশী ভারতের মধ্য দিয়ে বিদ্যমান আন্তঃসংযোগ সঞ্চালন লাইন ব্যবহার করে নেপাল থেকে বিদ্যুৎ ক্রয়ের চুক্তি বাস্তবায়নের পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। উল্লেখ্য, জেএসসি একটি দ্বিপাক্ষিক সচিব পর্যায়ের সংস্থা যা বাংলাদেশ ও নেপালের মধ্যে জ্বালানি খাতে সহযোগিতা জোরদার করে। আপনাদের হয়তো মনে আছে, গত বছরের আগস্টে কাঠমান্ডুতে অনুষ্ঠিত চতুর্থ জেএসসি বৈঠকে হাইভোল্টেজ বহরমপুর-ভেড়ামারা আন্তঃসীমান্ত সঞ্চালন লাইনের মাধ্যমে নেপাল থেকে বাংলাদেশে ৪০ থেকে ৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ রফতানির অনুমতি দেওয়ার জন্য উভয় দেশ ভারতকে অনুরোধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।
উভয় দেশের জ্বালানি খাতের প্রবৃদ্ধির জন্য সরকারি ও বেসরকারি খাতের সম্ভাব্য বিনিয়োগ, নেপালে যৌথ উদ্যোগে জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের সম্ভাবনা অনুসন্ধান, পশ্চিম নেপালে ভারতীয় কোম্পানি জিএমআর পরিচালিত ৯০০ মেগাওয়াট আপার কর্ণালি জলবিদ্যুৎ প্রকল্প থেকে ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি, একটি নতুন স্থাপনা, বাংলাদেশ, নেপাল ও ভারতের মধ্যে ত্রিপক্ষীয় চুক্তির জন্য নিবেদিত আন্তঃসীমান্ত সঞ্চালন লাইন এবং অন্যান্য উল্লেখযোগ্য উদ্যোগের মধ্যে রয়েছে:
পুনর্নবীকরণযোগ্য জ্বালানি, অর্থাৎ জলবিদ্যুৎ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ও নেপালের মধ্যে চুক্তির সম্ভাবনার উপর জোর দেওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। জেএসসি সম্মেলনে বাংলাদেশ ও নেপাল যৌথ উদ্যোগপ্রকল্পের অংশ হিসেবে নেপালে জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের বিস্তারিত পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে। নেপালে ৬৮৩ মেগাওয়াটের সুনকোশি ৩ জলবিদ্যুৎ প্রকল্প তৈরির বিষয়ে উভয় পক্ষ একটি চুক্তিতে পৌঁছেছে।
বৈঠকে নেপালের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, নেপালের প্রায় ৬০ হাজার মেগাওয়াট জলবিদ্যুৎ সম্পদ কার্যত সীমাহীন। ভারত নেপালের জলবিদ্যুৎ খাতে বিনিয়োগ করেছে। নেপালের ক্রমবর্ধমান জ্বালানি চাহিদা মেটাতে পরিবেশবান্ধব, সবুজ জলবিদ্যুৎ খাতে সহযোগিতা বাড়াতে প্রতিবেশী হিসেবে নেপালের সঙ্গে যুক্ত হতে পারে বাংলাদেশ। তবে এই ক্ষেত্রে যে কোনও অর্থবহ উন্নয়নের জন্য ভারতের সহযোগিতা প্রয়োজন। বাংলাদেশ ও নেপালের মধ্যে জলবিদ্যুৎ চুক্তির প্রচারভারতের আন্তঃদেশীয় গ্রিন পাওয়ার নেটওয়ার্ক উদ্যোগ থেকে উপকৃত হবে বলে মনে করা হয়, যা তার অঞ্চলে বিদ্যুৎ সরবরাহ করে।
নেপালের জলবিদ্যুৎ এবং বাংলাদেশের গ্যাস উভয়ই উন্নয়নের জন্য একটি আশাব্যঞ্জক ভবিষ্যত সরবরাহ করে এবং যদি সঠিকভাবে ব্যবহার করা হয় তবে এই দুই দেশের প্রাকৃতিক সম্পদ উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পাবে। ২০১৮ সালের আগস্টে যখন দুই দেশ জ্বালানি সহযোগিতার বিষয়ে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করে, তখন তারা জলবিদ্যুৎ প্রকল্প, সঞ্চালন লাইন এবং জ্বালানি খাতের সক্ষমতা উন্নয়নে সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি দেয়। এই চুক্তির বিধান অনুযায়ী, বাংলাদেশ ২০৪০ সালের মধ্যে নেপাল থেকে মোট ৯ হাজার মেগাওয়াট জলবিদ্যুৎ আমদানি করবে। বাংলাদেশের বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ এবং নেপালের তৎকালীন জ্বালানিমন্ত্রী বর্ষা মান পুন চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। চুক্তি স্বাক্ষরের পর পুন বলেন, ‘এই চুক্তি নেপালে জলবিদ্যুৎ খাতের সম্প্রসারণের নতুন দ্বার উন্মোচন করেছে।
বিদ্যুৎ খাতে দু’দেশের মধ্যে সহযোগিতার অতিরিক্ত সম্ভাবনা বিদ্যমান। উদাহরণস্বরূপ, বাংলাদেশে বাংলাদেশ পাওয়ার ম্যানেজমেন্ট ইনস্টিটিউটের (বিপিএমআই) মতো প্রাতিষ্ঠানিক সম্পদ রয়েছে যা মানব সম্পদ প্রশিক্ষণের জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে এবং তাই উভয় দেশের বিদ্যুৎ খাতের পেশাদারদের দক্ষতা উন্নত করা যেতে পারে। সৌর হোম এবং নেট মিটারিং অপারেশনগুলির অভিজ্ঞতা ভাগ করে নেওয়ার মাধ্যমে অন্যান্য বিদ্যুৎ শিল্পশাখাগুলি উপকৃত হতে পারে। বিশেষ করে নেপালের জলবিদ্যুৎ খাতে বাংলাদেশের বেসরকারি খাতের অংশগ্রহণকে গুরুত্ব সহকারে বিবেচনায় নিতে হবে। সুসংবাদটি হ’ল দুই দেশের মধ্যে উল্লিখিত সচিব পর্যায়ের সম্মেলনের সময়, এই সমস্ত বিষয়গুলি সম্পূর্ণরূপে কভার করা হয়েছিল।
বাংলাদেশ ও নেপালের মধ্যে ব্যবসায়িক সহযোগিতার সম্ভাবনা জলবিদ্যুৎ খাতের বাইরেও বিস্তৃত। বিভিন্ন শিল্পে, উভয় দেশ উভয় পক্ষের সুবিধার জন্য একসাথে কাজ করতে পারে।
সার্ক, বিবিআইএন ও বিমসটেকের সদস্য হওয়া সত্ত্বেও নেপাল ও বাংলাদেশ তাদের দ্বিপাক্ষিক যোগাযোগকে পারস্পরিক লাভজনক অর্থনৈতিক সহযোগিতায় পরিণত করতে পারেনি। অনেক সম্ভাবনার মধ্যে কয়েকটি বাণিজ্য, বিনিয়োগ, সংযোগ, জ্বালানি সহযোগিতা, শিক্ষা এবং পর্যটন অন্তর্ভুক্ত। উভয় সরকারকে অবশ্যই দক্ষিণ এশিয়ায় উপ-আঞ্চলিক সহযোগিতার গুরুত্ব সম্পর্কে ভারতকে বোঝাতে হবে, যেখানে ভারত একটি সহায়তাকারী হিসাবে কাজ করে কারণ ভারত কেবল এই অঞ্চলের বৃহত্তম অর্থনীতিই নয়, এটি একমাত্র দেশ যা ঢাকা এবং কাঠমান্ডুর মধ্যে শারীরিকভাবে অবস্থিত এবং নেপাল বা বাংলাদেশের সাথে সীমান্ত ভাগ করে না।

লেখক: জুবেদা চৌধুরী, শিক্ষিকা এবং ফ্রিল্যান্স কলামিস্ট।