জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা প্রধানের বাংলাদেশ সফরকে ফলপ্রসু করতে হবে

:: সুফিয়ান সিদ্দিকী ::
প্রকাশ: ১২ মাস আগে
জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ। ফাইল ছবি

জাতিসংঘের জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা বিভাগের আন্ডার সেক্রেটারি-জেনারেল পিয়েরে ল্যাক্রোইক্স ২৫-২৬ জুন ঢাকা সফর করবেন। তিনি এমন এক সময়ে সফর করছেন যখন ঢাকায় দেশবিরোধী শক্তিগুলো বাংলাদেশকে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে নিষিদ্ধ করার জন্য প্রচারণা চালাচ্ছে। তবে আসল ঘটনা হলো, জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনের প্রধান পিয়েরে ল্যাক্রোইক্স তার আসন্ন সফরে বাংলাদেশ থেকে আরও শান্তিরক্ষী নেওয়ার অঙ্গীকার করবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে, যা বাংলাদেশের জন্য খুবই উৎসাহব্যঞ্জক এবং ইতিবাচক।

জাতিসংঘের আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল ডিপার্টমেন্ট অফ পিস অপারেশনস (ইউএসজি ডিপিও) ২০২৩ সালে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকের জন্য ঢাকায় প্রস্তুতিমূলক বৈঠকে যোগ দেবেন। মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকেটি জাতিসংঘ শান্তিরক্ষার জন্য গুরুত্বপূর্ণ উচ্চ-পর্যায়ের ইভেন্ট যা দ্বিবার্ষিকভাবে অনুষ্ঠিত হয়। দক্ষিণ কোরিয়া আয়োজিত ২০২১ ইভেন্টের পরে, ৫-৬ ডিসেম্বর ঘানার আক্রাতে ২০২৩ মন্ত্রীসভা অনুষ্ঠিত হবে। শান্তিরক্ষা কার্যক্রমের বিশেষ কমিটিতে প্রতিনিধিত্ব করা সমস্ত সদস্য রাষ্ট্রকে এই ইভেন্টে অংশগ্রহণের জন্য আমন্ত্রণ জানানো হবে।

এদিকে নির্বাচনের আগে সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টির সুস্পষ্ট চেষ্টা চলছে। চলছে নানা আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র। সম্প্রতি, মার্কিন কংগ্রেসের ছয় সদস্য, একটি চিঠিতে, রাষ্ট্রপতি জো বাইডেনকে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশের আইন প্রয়োগকারী এবং সামরিক কর্মীদের অংশগ্রহণ নিষিদ্ধ করার জন্য “উপযুক্ত ব্যবস্থা” নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। বিশ্লেষকরা এই আহ্বানের পিছনে লবিস্টদের হাত দেখেন। নতুন ষড়যন্ত্র এখন নীল হেলমেটেধারী বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর দিকে, যখন বাংলাদেশের ভূমিকা জাতিসংঘে অত্যন্ত প্রশংসিত হয়েছে।

হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডব্লিউ) সম্প্রতি জাতিসংঘকে বাংলাদেশি বাহিনীর শান্তি মিশনে নেওয়ার আগে তাদের প্রেক্ষাপট খতিয়ে দেখার পরামর্শ দিয়েছে। হিউম্যান রাইটস ওয়াচের মতে, যাদের শান্তিরক্ষা মিশনে নেওয়া হয়েছে তাদের শান্তিরক্ষা মিশনে অন্তর্ভুক্ত করার আগে অতীতের মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য স্ক্রিন করা উচিত। হিউম্যান রাইটস ওয়াচের পক্ষ থেকে এই বক্তব্য এমন এক সময়ে দেওয়া হয়েছে যখন বাংলাদেশে নির্বাচন আসছে এবং নির্বাচন নিয়ে নানা ষড়যন্ত্র চলছে।

একথা অস্বীকার করার উপায় নেই যে এইচআরডব্লিউ দীর্ঘদিন ধরে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপপ্রচারের সঙ্গে জড়িত। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক এই মানবাধিকার সংস্থা বাংলাদেশে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করেছিল। ওই সময় যুদ্ধাপরাধী গোষ্ঠী তাদের মোটা অঙ্কের আর্থিক অনুদান দিয়েছে বলে অভিযোগ আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। তবে বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুযায়ী এবং সর্বোচ্চ আইনি প্রক্রিয়া অনুসরণ করে যুদ্ধাপরাধের বিচার করেছে। কিন্তু তারপরও, এইচআরডব্লিউ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে এটি নিয়ে অভিযোগ করে চলেছে। এরপর হিউম্যান রাইটস ওয়াচ বাংলাদেশে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি তুলে ধরে এবং একের পর এক অভিযোগ করতে থাকে। বিশ্লেষকরা মনে করেন, এটাও রাষ্ট্রবিরোধীদের আন্তর্জাতিক লবিং-এর ফল।

হিউম্যান রাইটস ওয়াচ বাংলাদেশে সরকার বিরোধী দুই সংগঠন অধিকার ও মায়ার ডাকের তথ্য নিয়ে বাংলাদেশে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড নিয়ে একের পর এক বানোয়াট বিদ্বেষমূলক প্রতিবেদন তৈরি করতে থাকে। এমনকি তারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলোতে সেগুলো বিতরণ শুরু করে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র গত দুই বছর ধরে এইচআরডব্লিউর রিপোর্টর দিকে মনোযোগ দিচ্ছে। র‌্যাবের নিষেধাজ্ঞার প্রতিবেদনে এইচআরডব্লিউর রিপোর্টর কথা উল্লেখ করা হয়েছে। সাম্প্রতিক মার্কিন মানবাধিকার রিপোর্টেও এইচআরডব্লিউ-এর উল্লেখ আছে। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন যে হিউম্যান রাইটস ওয়াচের শান্তি মিশন নিয়ে সাম্প্রতিক আহবান একটি উদ্বেগজনক পদক্ষেপ। মনে রাখা উচিত, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী দেশের আইন প্রয়োগ প্রচেষ্টার সাথে জড়িত নয়। বাংলাদেশ সেনাবাহিনী দেশের মূল্যবান সম্পদ যারা দেশের আঞ্চলিক অখণ্ডতা রক্ষাসহ সব ধরনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করে।

১৯৮৮ সালে জাতিসংঘের ব্লু হেলমেটে যোগদানের পর থেকে বাংলাদেশী শান্তিরক্ষীরা বিশ্ব মানবতার সেবায় তাদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলেছে। আজ, বাংলাদেশী শান্তিরক্ষীরা তাদের পেশাদারিত্ব, নিরপেক্ষতা, সততা এবং মানবিক মনোভাবের কারণে বিশ্ব শান্তিরক্ষায় রোল মডেল হিসেবে পরিচিত। দেশটি ২০১২ সাল থেকে পাঁচবার শীর্ষে আছে। বাংলাদেশ বর্তমানেও জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে ইউনিফর্ম পরা কর্মীদের শীর্ষ অবদানকারী এবং বিশ্বের অন্যতম প্রশিক্ষিত এবং ভাল কর্মক্ষমতা সম্পন্ন দেশ।

বর্তমানে নয়টি শান্তিরক্ষা মিশনে প্রায় সাড়ে সাত হাজার বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মোতায়েন রয়েছে। এ পর্যন্ত ১৬৭ জন সাহসী ও বীর বাংলাদেশী শান্তিরক্ষী তাদের জীবন দিয়েছেন এবং ২৫৯ জন শান্তিরক্ষী বিশ্ব শান্তির বৃহত্তর লক্ষ্যে গুরুতর আহত হয়েছেন। তাদের আত্মত্যাগ সারা বিশ্বের কাছে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছে।

এখন পর্যন্ত, ১৮৮,৫৫৮ বাংলাদেশী শান্তিরক্ষী ৪০টি দেশে বা স্থানে ৬৩টি জাতিসংঘের মিশন বা অ্যাসাইনমেন্টে অংশগ্রহণ করেছে। হাইতি থেকে পূর্ব তিমুর, লেবানন থেকে কঙ্গো, বাংলাদেশের শান্তিরক্ষীরা সংঘাতপূর্ণ প্রায় সব জায়গায় তাদের ছাপ রেখে গেছেন । বিশ্ব শান্তির সাথে সম্পৃক্ততার জন্য বাংলাদেশের রোডম্যাপ দেশের সংবিধানে দৃঢ়ভাবে উচ্চারিত হয়েছে। বাংলাদেশ শান্তি মিশনের উপস্থিতি হ্রাস বা বন্ধ করার জন্য সরকারবিরোধী শক্তির পদক্ষেপ এখনই বন্ধ করা দরকার।

মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্ট মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য ১০ ডিসেম্বর, ২০২১ তারিখে র‌্যাব এবং এর সাতজন প্রাক্তন এবং বর্তমান কর্মকর্তার উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। কিন্তু এর পরে, মার্কিন প্রশাসন র‌্যাবের অগ্রগতি লক্ষ্য করে এবং প্রকাশ্যে স্বীকার করে যে পরিস্থিতি পরিবর্তন হচ্ছে এবং তারা মানবাধিকারের প্রতি সম্মান জানাতে বাংলাদেশের সাথে একসাথে কাজ করছে। যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়া বিষয়ক সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডোনাল্ড লু ১৫ জানুয়ারি ঢাকা সফরকালে বলেন, মানবাধিকারের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে র‌্যাব তার দায়িত্ব পালনে “অভূতপূর্ব অগ্রগতি” করেছে।

অন্যদিকে, জাতিসংঘ গত ২৯শে মে আন্তর্জাতিক শান্তিরক্ষী দিবসে বাংলাদেশের শান্তিরক্ষা প্রচেষ্টার প্রশংসা করেছিল। জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে সর্বোচ্চ আত্মত্যাগের জন্য পাঁচজন বাংলাদেশী শান্তিরক্ষীকে “ডাগ হ্যামারস্কজল্ড মেডেল” প্রদান করেন। এতকিছুর পরেও কেন তাহলে বিরোধী রাজনৈতিক দলের সদস্যরা শান্তিরক্ষীদের উপর নিষেধাজ্ঞার পক্ষে ওকালতি করে? উত্তরটি সহজ: তারা সর্বদা এমন সমস্যাগুলিকে এগিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে যা তাদের স্থানীয় রাজনীতিতে সমর্থন পেতে সহায়তা করবে।

কিছু বিদেশী খেলোয়াড় ক্রমাগত একটি নির্দিষ্ট দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করার জন্য গণতন্ত্র এবং মানবাধিকারের মতো ধারণাগুলিকে রাজনীতিকরণ করার চেষ্টা করে। সাম্প্রতিক ইতিহাস বলে যে এটি কোন নতুন ঘটনা নয়। এটি ১১ জানুয়ারী, ২০০৭ সালের আগেও ঘটেছিল। ১১ জানুয়ারী, ২০০৭ রাজনীতিতে “১/১১” নামে পরিচিত, তখন একটি সামরিক-নিয়ন্ত্রিত তত্ত্বাবধায়ক প্রশাসন একটি উত্তাল রাজনৈতিক পরিবেশে কর্তৃত্ব গ্রহণ করে এবং দুই বছর ধরে বহাল থাকে। ঢাকায় জাতিসংঘের প্রতিনিধিরা ১/১১ এর আগে বেশ সক্রিয় ছিলেন এবং তারা শান্তিরক্ষা ইস্যুকে নেতিবাচকভাবে এগিয়ে নিয়ে আসার ক্ষেত্রে ভূমিকা পালন করেছিল। ধারণা করা হচ্ছে, সেই প্রেক্ষাপটেই, বেশ কয়েকটি দল তাদের নিজস্ব রাজনৈতিক কর্মসূচির জন্য বিষয়টিকে আবার সামনে আনার চেষ্টা করতে পারে।

শান্তিরক্ষী প্রেরণকারী আরও অনেক দেশেরও নিজস্ব অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক সমস্যা রয়েছে। কিন্তু শান্তিরক্ষা মিশনে তাদের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়নি। তাহলে কিভাবে এবং কিসের ভিত্তিতে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশকে নিষিদ্ধ করবে? ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ডক্টর ইমতিয়াজ আহমেদ যথোপযুক্তভাবে বলেছেন, “জাতিসংঘ যদি অভ্যন্তরীণ বিষয় বিবেচনা করে কোনো দেশকে নিষিদ্ধ করে, তাহলে আমেরিকাকেও নিষিদ্ধ করা হবে কারণ তাদেরও ব্যপক অভ্যন্তরীণ সমস্যা আছে।”

অবশেষে, এটা বোঝা যায় যে লবিস্ট গোষ্ঠী, সরকার বিরোধী শক্তি, বা তথাকথিত মানবাধিকার সংগঠনগুলো নির্বাচনকে সামনে রেখে আরও বিভ্রান্তিমূলক প্রচারণায় জড়িত হবে। এ ব্যাপারে সরকার উদাসীন থাকলে পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে।

 

লেখক: সুফিয়ান সিদ্দিকী, গবেষক ও ফ্রিল্যান্স কলামিস্ট।