ইউকে বাংলা রিপোর্টার্স ইউনিটির উদ্যোগে স্বাধীনতা দিবস পালন ও ইফতার

:: আনসার আহমেদ উল্লাহ, লন্ডন ::
প্রকাশ: ৩ মাস আগে

বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস উদযাপন করেছে ইউকে বাংলা রিপোর্টার্স ইউনিটি। গত ২৩ মার্চ পূর্ব লন্ডনের একটি রেষ্টুরেন্টে ইউকে বাংলা রিপোর্টার্স ইউনিটি আয়োজিত মহান স্বাধীনতা দিবসের আলোচনা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

সংগঠনের সহসভাপতি, সাজিদুর রহমান এর সভাপতিত্বে এবং সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক জুবায়ের আহমদের পরিচালনায় বাংলাদেশের স্বাধীনতা শীর্ষক আলোচনায় প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন ব্রিটেনে বাংলা মিডিয়ার জ্যেষ্ট সাংবাদিক সংগঠনের সাবেক সভাপতি মতিয়ার চৌধুরী। তিনি তার বক্তব্যে বলেন, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম না হলে বাংলাদেশ স্বাধীন হতো না, আমরাও বিশ্ব দরবারে নিজেদের বাঙালি হিসেবে পরিচয় দিতে পারতাম না। বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ একই সূত্রে গাঁথা। তিনি বলেন স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তি শহীদরে সংখ্যা, স্বাধীনতার ঘোষক ইত্যাদি নিয়ে অপপ্রচারে লিপ্ত। আমরা যারা মুক্তিযুদ্ধ প্রত্যক্ষ করেছি আমাদের ঈমনী দায়িত্ব নবপ্রজন্মের কাছে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস তুলে ধরা।

সংগঠনের পক্ষ থেকে আলোচনায় আরো অংশ নেন সাবেক সভাপতি মুহাম্মদ শাহেদ রাহমান, সহ-সভাপতি জামাল আহমদ খান, সহ- সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ সালেহ আহমদ, সহ- সাধারণ সম্পাদক ড.আজিজুল আম্বিয়া, সহ-কোষাধ্যক্ষ মির্জা আবুল কাশেম, ইভেন্ট এন্ড ফ্যাসেলিটিজ সম্পাদক এ. রহমান অলি ও সাবেক সহ সভাপতি ব্যারিষ্টার ইকবাল হোসেন ।

অন্যান্যের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন সাংবাদিক শাহ মোস্তাফিজুর রহমান বেলাল, ইমরান মাহমুদ, কবি ফয়েজুর রহমান ফয়েজ, লেবার পার্টির হোয়াইটচ্যাপল শাখার সেক্রেটারী কমিউনিটি এক্টিভিস্ট মো. সুয়েজ মিয়া, সাবেক কাউন্সিলর শাহ সোহেল আমিন, কমিউনিটি এক্টিভিস্ট মোঃ সুলতান আহমেদ, সালমান আহমেদ চৌধুরী, আব্দুস সত্তার, সেলিম আহমদ ও হাসান আহমেদ প্রমুখ।

ইফতার পূর্বে মোনাজাতে পরিচালনা করেন সংগঠনের কোষাধ্যক্ষ এসকেএম আশরাফুল হুদা। উক্ত মোনাজাতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু, ৭১’র বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের ৩০ লক্ষ শহীদের আত্মার শান্তি, দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনা করা হয়।


[প্রিয় পাঠক, পাবলিক রিঅ্যাকশনের প্রায় প্রতিটি বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। আপনার অনুভূতির কথা আমাদের লিখে পাঠান। ছবিসহ মেইল করুন opinion2mail@gmail.com এই ঠিকানায়। যে কোনো খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। পাঠকের লেখা আমাদের কাছে সবসময়ই গুরুত্বপূর্ণ।]